রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন

pic
শিরোনাম :
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান আগামীকাল গাইবান্ধায় আসছেন দারিয়াপুরে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা গোবিন্দগঞ্জে অগ্নিকাণ্ডে ৪টি কৃষক পরিবারের ঘরবাড়ী ভস্মিভূত গাইবান্ধায় শিক্ষা মেলার সমাপনী ফুলছড়ির তদন্ত কেন্দ্র স্থাপনের দাবীতে মানববন্ধন বিক্ষোভ মিছিল গাইবান্ধায় পৃথক কর্মসূচির মাধ্যমে দলীয় চেয়ারম্যান এরশাদের জন্মদিন পালন গাইবান্ধায় সাতদিনব্যাপী এসএমই পণ্য মেলার উদ্বোধন স্থগিত গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন আগামী ৩১ মার্চ তিস্তার পানি ন্যায্য হিস্যা আদায়সহ উত্তরবঙ্গকে রক্ষার দাবীতে বাসদের রোডমার্চ ফুলছড়িতে ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শনে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী
নোটিশ :
আপনার ব্যবসা বা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে কল করুন 01715-418384
পলাশবাড়িতে স্ত্রীর অধিকার ও সন্তানের পিতৃত্বের দাবি

পলাশবাড়িতে স্ত্রীর অধিকার ও সন্তানের পিতৃত্বের দাবি

পলাশবাড়িতে স্ত্রীর অধিকার ও সন্তানের পিতৃত্বের দাবি

গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ি উপজেলার বাড়াইপাড়া গ্রামে প্রয়াত আবুল মিয়া সরকারের মেয়ে আমেনা বেগম স্বামী বাদশা মিয়ার কাছে স্ত্রীর অধিকার ও তার একমাত্র পুত্র সন্তানের পিতৃত্বের দাবি জানিয়েছে। মঙ্গলবার গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের কাছে এ দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে আমেনা বেগম উলে¬খ করেন, ওই উপজেলার বৈরী হরিণমারি গ্রামের মৃত নিজাম উদ্দিনের ছেলে বাদশা মিয়া ১৯৯৪ সালে প্রথম স্ত্রীর কথা গোপন করে তাকে দ্বিতীয় বিয়ে করে। বিয়ের পর প্রথম সন্তান আলামিনের জন্মের ৬ মাস বয়সের সময় স্বামী বাদশা মিয়া চাকরি করার উদ্দেশ্যে সৌদি আরবে যায়। সৌদি আরবে যাওয়ার তিনমাস পর থেকেই স্বামী বাদশা মিয়া তার ও সন্তানের ভোরণ পোষণ বন্ধ করে দিয়ে তাদের সাথে সকল প্রকার যোগাযোগ ছিন্ন করে। ফলে সন্তানকে নিয়ে চরম বিপাকে পড়ে আমেনা বেগম।

এমতাবস্থায় অন্যের বাড়িতে গৃহপরিচারিকার কাজ করে আমেনা বেগম নিজের জীবনজীবিকা নির্বাহসহ সন্তান লালন পালন করতে থাকে। পরে সৌদি আরব থেকে চাকরি ছেড়ে দিয়ে বাদশা মিয়া পলাশবাড়ির নিজ বাড়িতে বসবাস শুরু করলে আমেনা বেগম স্ত্রীর অধিকার নিয়ে এবং সন্তানের পিতার স্বীকৃতির দাবিতে একাধিকবার তার বাড়িতে যায়। কিন্তু বাদশা মিয়া প্রথম স্ত্রীর প্ররোচনায় তাকে এবং তার সন্তান আলামিনকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। সেসময় বাদশা মিয়া জানিয়ে দেয় যে অনেক আগেই তাকে তালাক দিয়েছে। অথচ তালাকের কোনো কাগজপত্র আমেনা বেগমের হস্তগত হয়নি।

সম্পূর্ণ বেআইনীভাবে সন্তানের পিতৃত্বকে অস্বীকার এবং স্ত্রীর অধিকার থেকে বঞ্চিত করে বাদশা মিয়া তাদেরকে সমাজে নানা লাঞ্ছনা-গঞ্জনার এবং চরম দুর্ভোগের মুখে ঠেলে দিয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আমেনার ছেলে আলামিন মিয়া, বড় ভাই মো. মন্টু মিয়া, ভাতিজা মো. ওমর ফারুক, প্রতিবেশী মো. শফিউল আলম।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

− 1 = 2

© All rights reserved © 2019 GaibandhaNews.Com DMCA.com Protection Status
Design & Developed BY ThemesBazar.Com